বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৯:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
Logo হবিগঞ্জে দেশের সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা ও শিক্ষিকা রিবন রুপা দাশের রহস্যজনক মৃত্যু: হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন Logo বীরগঞ্জে মাদক বিক্রেতা স্বামী স্ত্রী সহ আটক ৩ Logo রংপুর বিভাগের শ্রেষ্ঠ এএসআই কুড়িগ্রাম সদর থানার শাহিন Logo নড়াইলের লোহাগড়ায় ক্লাইমেট স্মার্ট কৃষি প্রযুক্তি মেলা উদ্বোধন ও প্রিজাইডিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত Logo নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্গন চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিনুল ইসলামের সমর্থকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা Logo ভুট্টার বাম্পার ফলনে লাভের স্বপ্ন দেখছেন,বীরগঞ্জের ভুট্টা চাষীরা Logo সমস্ত জাতিবেদ প্রথা বিলুপ্তিতে শ্রীচৈতন্যদের ভূমিকা অপরিসীম Logo চট্টগ্রামে মানবাধিকার কর্মী জুয়েল আইচ এর নামে বিভিন্ন ফেইক আইডি থানায় জিডি Logo লাঙ্গল বন্দ স্নান উৎসবে সনাতনী সেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশনের সেবা দানে প্রসংশায় পঞ্চমুখ তীর্থযাত্রীবৃন্দ Logo বন্দরনগরী চট্টগ্রামে সনাতনী সেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশনের শরবত বিতরণ

‘মিয়ানমারকে শক্ত বার্তা দিতে পারছে না বাংলাদেশ’

সোনার বাংলা নিউজ / ১২৫ বার পঠিত
আপডেট : রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:২৮ অপরাহ্ণ
বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত। ফাইল ছবি

সীমান্তে মিয়ানমারের মর্টার শেল নিক্ষেপের ঘটনা প্রয়োজনে জাতিসংঘকে জানানো হবে, বলেছেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী৷ তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন শক্ত বার্তা দিতে না পারায় বাংলাদেশকে পাত্তা দিচ্ছে না মিয়ানমার৷

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পর্যায় থেকে এ নিয়ে মিয়ানমারকে বার বার সতর্ক করা হচ্ছে বলে দাবি সরকারের৷ বাংলাদেশে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে সতর্ক করা হয়েছে বলে জানা গেছে৷ কিন্তু তারপরও থামছে না বাংলাদশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্তের এই অস্থিরতা৷

সাবেক কূটনীতিক ও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মিয়ানমারকে থামাতে প্রয়োজনীয় যে শক্ত বার্তা দেওয়া প্রয়োজন তা পারছে না সরকার৷ আর এ কারণেই বাংলাদেশের বার্তা আমলে নিচ্ছে না মিয়ানমার৷ শক্ত বার্তা প্রদানের অংশ হিসেবে সীমান্তে অবস্থান শক্তিশালী করার পরামর্শ তাদের৷

শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে তুমব্রু সীমান্তে মিয়ানমারের ছোড়া মর্টার শেল বিস্ফোরণে ইকবাল নামে এক রোহিঙ্গা যুবক নিহত হয়েছেন৷ এ ঘটনায় আরও পাঁচজন আহত হয়েছেন৷ নিহত ইকবাল ও আহতরা তুমব্রু সীমান্তে নো ম্যানস ল্যান্ডের বাসিন্দা৷ রাতে জিরো লাইন থেকে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে প্রবেশ করলেও শনিবার সকালে তারা আবার জিরো লাইনের আশ্রয়কেন্দ্রে চলে গেছেন৷ কিন্তু তারা চরম আতঙ্কের মধ্যে আছেন৷

নিরাপত্তার জন্য সীমান্ত এলাকার ঘুমধুম উচ্চবিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষাকেন্দ্রটি সরিয়ে ওই কোন্দ্রের ৪৯৯জন পরীক্ষার্থীকে শনিবার সকালে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং পরীক্ষাকেন্দ্রে নেয়া হয়৷

তার আগে গত ৯ সেপ্টেম্বর বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম-তুমব্রু সীমান্তে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে মিয়ানমার থেকে ছোড়া একটি বুলেট এসে পড়ে৷ ৩ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৯টায় মিয়ানমারের যুদ্ধবিমান থেকে ছোড়া দুটি গোলা বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম এলাকায় পড়ে৷ ২৮ আগস্ট বিকাল ৩টার দিকে মিয়ানমার থেকে নিক্ষেপ করা একটি মর্টার শেল অবিস্ফোরিত অবস্থায় ঘুমধুমের তুমব্রুর উত্তর মসজিদের কাছে পড়ে৷

বর্তমান পরিস্থিতি

ঘুমধুম সীমান্তের তুমব্রু গ্রামের মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘‘আমরা ভয়ের মধ্যে আছি৷ কেউ কেউ এলাকা ছেড়ে চলেও গেছেন৷ শুক্রবার রাতে মর্টার শেল পড়ার পর আমাদের এলাকার অনেকেই নিরাপদে সরে গিয়েছিলেন৷ সকালে আবার ফিরে এসেছেন৷”

তিনি জানান, ‘‘শনিবারও সীমান্তের ওই পাশে সারাদিন গুলাগুলির শব্দ শোনা গেছে৷ আমাদের প্রয়োজনীয় কোনো কাজ না থাকলে ঘরের বাইরে বের না হওয়ার জন্য বলা হয়েছে৷”

ওই এলাকার আরেক বাসিন্দা তারেক আজিজ বলেন, ‘‘শনিবার রাতে তুমব্রু নো ম্যানস ল্যান্ডে মর্টার শেল পড়লেও তার সাথেই কোনাপাড়া গ্রাম৷ শুক্রবার রাতেই ওই গ্রামের সবাই তাদের আত্মীয়-স্বজনের বাড়িত চলে গেছেন৷ আমরা এখন কখন কী হয় সেই আতঙ্কে আছি৷”

জাতিসংঘকে জানানো হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান শনিবার জানান, মিয়ানমারের মর্টার শেল নিক্ষেপের ঘটনা প্রয়োজনে জাতিসংঘকে জানানো হবে৷ তিনি ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘‘মিয়ানমার ইস্যুতে বাংলাদেশ যুদ্ধ চায় না৷ শান্তিপূর্ণ ও কূটনৈতিকভাবে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছে৷”

তিনি জানান, ‘‘বাংলাদেশের পক্ষ থেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পর্যায়ে বার বার সতর্ক করা হলেও তারা কথা দিয়ে কথা রাখেনি৷ এছাড়াও বান্দরবানের তুমব্রু সীমান্তে মিয়ানমারের মর্টার শেল নিক্ষেপ ও হতাহতের ঘটনায় মিয়ানমারকে কড়া ভাষায় প্রতিবাদ জানানো হয়েছে৷”

তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেও বলেন, বারবার নিষেধের পরেও মিয়ানমার থেকে গোলা বাংলাদেশের সীমানায় ঢুকছে, এতে বাংলাদেশ নাগরিক আহত হচ্ছেন৷ এক্ষেত্রে নতুন করে দেশটি থেকে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের আশঙ্কায় বিজিবিকে কঠোর অবস্থানে রেখেছে সরকার৷

নিজেদের অবস্থান শক্ত করতে হবে’

বাংলাদেশের আকাশ সীমা লঙ্ঘন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে বার বার গোলা নিক্ষেপ নিয়মিত ঘটনায় পরিণত করেছে মিয়ানমার৷ প্রতিটি ঘটনায় ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে ‘কড়া প্রতিবাদ’ জানানোর পরও কোনো কাজ হচ্ছে না৷

গত ১৪ সেপ্টেম্বর পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ সীমান্তে মিয়ানমার আর কোনো গোলা ফেলবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে৷’’

কিন্তু পরাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন কথার পরও দেখা গেছে মিয়ানমার থেকে ছোড়া গোলা বেশ কয়েকবার বাংলাদেশ সীমান্তে পড়েছে৷

মিয়ানমারে বাংলাদেশের সাবেক সামরিক অ্যাটাশে এবং সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক মনে করেন, ‘‘বাংলাদেশ মিয়ানমারকে শক্ত মেসেজ দিতে পারছে না৷ ফলে বাংলাদেশকে তারা পাত্তা দিচ্ছে না৷’’

তিনি মনে করেন, ‘‘সীমান্তে আমাদের এখন অবস্থানটি এমন হতে হবে যাতে তারা বুঝতে পারে যে এসব কিছু করে পার পাওয়া যাবে না৷ সীমান্তে সেই অবস্থানটি আমরা এখনো দেখতে পাচ্ছিনা৷’’

তার কথা, ‘‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যে বললেন, আমরা যুদ্ধ চাই না এটা তো বলার কোনো কথা নয়৷ এতে তো আমাদের দুর্বলতা প্রকাশ পায়৷ আমরা কী চাই সেটা বলতে হবে৷ আমার মনে হয় আমরা বিষয়টি ঠিক মতো অ্যাড্রেস করতে পারছি না৷’’

তিনি বলেন, ‘‘এখন মিয়ানমার সেনাবাহিনী বাংলাদেশের সীমান্ত ঘেঁষে আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছে৷ আর আরাকান আর্মিও শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে৷ এটা দীর্ঘস্থায়ী হবে৷ তাই আমাদের বাস্তবে শক্ত অবস্থান নিতে হবে৷”

আর ঢাকা বিশ্বিবিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন মনে করেন, ‘‘বাংলাদেশেকে মিয়ানমারের বিষয় নিয়ে কূটনৈতিকভাবেই কাজ করতে হবে৷ কিন্তু মিয়ানমারকে এটাও বোঝাতে হবে যে বাংলাদেশ জবাব দিতে সক্ষম৷ তারা আমাদের সঙ্গে যুদ্ধ করছে না সত্য কিন্তু তারা যা করছে তা একরকম যুদ্ধের উসকানি ছাড়া আর কিছু না৷’’

তার কথা, ‘‘বাংলাদেশের কূটনৈতিক তৎপরতায় এখন চীন ও ভারতকে গুরুত্বের মধ্যে নিতে হবে৷ এই দুইটি দেশকে কাজে লাগাতে পারলে মিয়ানমারের অবস্থার পরিবর্তন হবে৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রয়োজনে বিষয়টি জাতিসংঘে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন৷ কিন্তু এই বলাই যেন শেষ না হয়৷

তার মতে, এটাকে আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে৷ কারণ মিয়ানমার এমন একটি দেশ যেখানে গণতন্ত্র, মানবাধিকার বলে কিছু নেই৷ তারা নানা নিষেধাজ্ঞার মধ্যে আছে৷ এই অঞ্চলের নিরপত্তা স্থিতিশীলতার জন্য তারা হুমকি৷


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD