রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
Logo রাস্তায় পড়ে থাকা অসুস্থ বৃদ্ধের চিকিৎসার সহ যাবতীয় দায়িত্ব নিলেন সনাতনী সেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন Logo হাবড়া নান্দনিক নাট্যোৎসবের কেতন ওড়ালো Logo নড়াইলে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ ও বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন এসপি মেহেদী হাসান Logo নড়াইলে ওয়ারেন্টভূক্ত আসামি তরিকুল ইসলাম গ্রেফতার Logo বীরগঞ্জে কমেছে সবজি-পেঁয়াজের দাম, মাংসের দাম চড়া Logo বীরগঞ্জে জুয়া খেলার সরঞ্জাম সহ ইউপি সদস্যের দুই স্ত্রী’র কারাদন্ড Logo চট্টগ্রামে বিশ্ব নাট্য দিবস উদযাপন Logo পাহাড়ের নাট্য আন্দোলন ও একজন সোহেল রানা Logo বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে ২৫ মার্চ জাতীয় গণহত্যা দিবস পালিত Logo নড়াইলের দিঘলিয়া বিটে আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

বিশ্বসেরা মেসির হাতেই বিশ্বকাপ

সোনার বাংলা নিউজ / ১৪৪ বার পঠিত
আপডেট : সোমবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ১:৫০ অপরাহ্ণ

বিশ্বকাপ জিতেছে আর্জেন্টিনা। অবশেষে ফুরোলো অপেক্ষা করে। অপেক্ষার ৩৬ বছর। টাইব্রেকারে ফ্রান্সকে ৪-২ গোলে হারিয়ে কাতার বিশ্বকাপ জিতেছে আলবিসেলেস্তে। ঋণ শোধ করে মেসির হাতে বিশ্বকাপ তুলে দিচ্ছে ফুটবল।

ম্যারাডোনার অধীনে ১৯৮৬ সালে আর্জেন্টিনারা বিশ্বকাপ জিতেছিল। দীর্ঘ ৩৬ বছর অপেক্ষার পর স্বপ্নের জয়ে উল্লাসে মেতে উঠেছে গোটা দেশ। অতিরিক্ত সময়ে খেলা ৩-৩ সমতায় ছিল। ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়ে স্বপ্নের সোনার কাপ ছিনিয়ে নেয় আর্জেন্টিনা।

দোহার আইকনিক লুসাইল স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপ ফাইনালে আর্জেন্টিনার শ্বাসরুদ্ধকর জয়। ফ্রান্সকে ৩-২ গোলে হারিয়ে গোল্ডেন কাপ জিতেছে আর্জেন্টিনা। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণ করে আর্জেন্টিনা। ম্যাচের তৃতীয় মিনিটে প্রান্ত থেকে ক্রস করেন ডি মারিয়া। পাস না দিলে বল দখলে নেন ফরাসি গোলরক্ষক হুগো লরিস। ম্যাচের ৩৫ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে শট করেন ম্যাকঅ্যালিস্টার। কিন্তু হুগো লরিস তা বন্ধ করে দেন। এরপর ম্যাচের ২৮তম মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে শট করেন ডি পল। তবে ডিফেন্ডার দ্বারা প্রতিহত হলে কর্নার পায় আর্জেন্টিনা। কিন্তু তারা তা কাজে লাগাতে পারেনি।

ম্যাচের ১৩তম মিনিটে প্রথম আক্রমণ করে ফ্রান্স। তবে বল দখলে নিয়ে ক্লিয়ার করেন গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ। ম্যাচের ১৯তম মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে বাঁ দিক থেকে ফ্রি কিক পায় ফ্রান্স। সেখান থেকে আন্তোনিও গ্রিজম্যানের নেওয়া ফ্রি কিকে হেড করেন অলিভিয়ের গিরুড। কিন্তু এটি ক্রসবারের উপর দিয়ে সংকুচিত হয়ে যায়।

ম্যাচের 21তম মিনিটে ডি বক্সের ভেতরে ডি মারিয়াকে ফাউল করা হলে পেনাল্টি পায় আর্জেন্টিনা। সেখান থেকে লিওনেল মেসির গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। ম্যাচে পিছিয়ে পড়ে আক্রমণে যায় ফ্রান্স। ম্যাচের ২৬ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে ফ্রি কিক পায় ফ্রান্স। কিন্তু গোল করতে ব্যর্থ হয় তারা।

ম্যাচের ৩৬ মিনিটে আবারও গোল করে আর্জেন্টিনা। পাল্টা আক্রমণে ডান দিক থেকে পাস দেন ম্যাকঅ্যালিস্টার। দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ে ফ্রান্সের জালে বল জড়ান ডি মারিয়া। তার গোলে ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে ২-০ তে এগিয়ে দেয়। এরপর ম্যাচের ৪৩তম মিনিটে আক্রমণে যায় আর্জেন্টিনা। কিন্তু গোল করতে ব্যর্থ হয় তারা। ম্যাচের ৪৫ মিনিটে আক্রমণে যায় ফ্রান্স। কিন্তু ডিফেন্ডাররা তা সাফ করে দেন। একাধিক আক্রমণের পরও গোল করতে ব্যর্থ হয় দুই দলই। শেষ পর্যন্ত আর কোনো গোল না হলে ২-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

বিরতির পর আক্রমণ করে আর্জেন্টিনা। কিন্তু হুগো লরিস তা বন্ধ করে দেন। ম্যাচের ৪৯তম মিনিটে ডি মারিয়ার পাস থেকে ভলি করেন ডি পল। কিন্তু হুগো লরিস আবার তা বন্ধ করে দেন। এরপর ম্যাচের ৫৩তম মিনিটে কর্নার পায় আর্জেন্টিনা। কিন্তু তারা তা কাজে লাগাতে পারেনি। ম্যাচের ৫৫ মিনিটে ডি পলকে ফাউল করায় হলুদ কার্ড দেখেন আদ্রিয়েন রাবিওট। ম্যাচের ৬০তম মিনিটে বক্সের ভেতর থেকে শট করেন মেসি। কিন্তু এটা পোস্টের বাইরে চলে যায়। ম্যাচে গোলের সুযোগ পায় আর্জেন্টিনা। কিন্তু হুগো লরিস বেরিয়ে এসে সাফ করে দিলেন।

এরপর ম্যাচের ৭৮ মিনিটে আক্রমণ করে আর্জেন্টিনা। কিন্তু গোল করতে ব্যর্থ হয় তারা। এরপর ম্যাচের ৭৯তম মিনিটে কোলো মনিকের বক্সে ফাউলের কারণে পেনাল্টি পায় ফ্রান্স। পেনাল্টি থেকে গোল করেন এমবাপ্পে। তার গোলে ফ্রান্সের হয়ে ম্যাচে ব্যবধান কমিয়ে দেয়। এরপর ম্যাচের ৮২তম মিনিটে আবারও গোল করে ফ্রান্স। কোম্যানের পাস থেকে দুর্দান্ত শটে আবার বল জালে জড়ান এমবাপ্পে। তার জোড়া গোলে ফ্রান্সের হয়ে ম্যাচটি সমতা আনে। এমবাপ্পের গোল সংখ্যা ৭টি। অনেক চেষ্টা করেও গোল করতে পারেনি দুই দলই। শেষ পর্যন্ত আর কোনো গোল না হলে ফাইনাল ম্যাচ খেলা হবে অতিরিক্ত সময়ে। অতিরিক্ত সময়ের দ্বিতীয়ার্ধে আর্জেন্টিনাকে আরও একটি লিড এনে দেন লিওনেল মেসি। ম্যাচের ১০৮ মিনিট পর আর্জেন্টিনাকে ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে দেন লিওনেল। খেলার ১১৮ মিনিট পর আবারও সমতায় ফেরেন এমবাপ্পে।

পেনাল্টি থেকে হ্যাটট্রিক করেন তিনি। এবারের খেলা টাইব্রেকারে গড়ায়।

টাইব্রেকারে আলবিসেলেস্তেদের জয় ৪-২!

অন্যদিকে, বিশ্বকাপ ফাইনালে হ্যাটট্রিক করেও ট্র্যাজিক হিরোই থাকতে হয়েছে কিলিয়ান এমবাপ্পেকে।

আর্জেন্টিনা একাদশ: এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, নাহুয়েল মোলিনা, ক্রিস্টিয়ান রোমেরো, নিকোলাস ওটামেন্ডি, নিকোলাস তালিয়াফিকো, রদ্রিগো ডি পল, এনজো ফার্নান্দেজ, অ্যালেক্সিস ম্যাকঅ্যালিস্টার, ডি মারিয়া, লিওনেল মেসি, জুলিয়ান আলভারেজ।

ফ্রান্স একাদশ: হুগো লরিস, জুলেস কুন্দে, রাফায়েল ভারানে, ডেওট উপমেকানো, থিও হার্নান্দেজ, অ্যান্টোইন গ্রিজম্যান, অরেলিয়ান চৌমেনি, আদ্রিয়েন রাবিওট, উসমানে দেম্বেলে, অলিভিয়ের গিরুদ এবং কাইলিয়ান এমবাপ্পে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD